Home Uncategorized স্বাস্থ্যের মধু খেয়ে মিঠু বিদেশে, এখন তদন্ত

স্বাস্থ্যের মধু খেয়ে মিঠু বিদেশে, এখন তদন্ত

সিএমএসডির সাবেক পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. শহীদউল্লাহ মৃত্যুর আগে লিখিতভাবে সরকারকে জানিয়েছিলেন, কেনাকাটায় অপ্রতিরোধ্য দুর্নীতির কারণ, স্বাস্থ্য খাত ‘মিঠুচক্র’–এর কবজায়। এরপরই মূলত রাষ্ট্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা, দুর্নীতি দমন কমিশনসহ (দুদক) বেশ কয়েকটি সংস্থা নড়েচড়ে বসে। তবে তত দিনে মিঠুচক্রের প্রধান মোতাজজেরুল ইসলাম ওরফে মিঠু বিদেশে পাড়ি জমিয়েছেন।

কেন্দ্রীয় ঔষধাগারের (সিএমএসডি) পরিচালক শহীদউল্লাহ গত ২৫ জুলাই করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। এর আগে ৩০ মে জনপ্রশাসন সচিবকে লেখা চিঠিতে তিনি বলেন, মোতাজজেরুল ওরফে মিঠু সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগসাজশে বাজেট থেকে শুরু করে কেনাকাটার পরিকল্পনাও তৈরি করেন। তারপর সেই তালিকা ধরে সিএমএসডিকে দিয়ে জিনিসপত্র কেনান। নামে-বেনামে অনেক প্রতিষ্ঠান আছে তাঁর। ঘুরেফিরে এই প্রতিষ্ঠানগুলোই দরপত্র প্রক্রিয়ায় অংশ নেয়।

প্রয়াত শহীদউল্লাহ আরও জানান, সিএমএসডি ঢাকার সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জন্য কিছু যন্ত্রপাতি কেনাকাটার বিজ্ঞপ্তি দিয়েছিল। একটি প্রতিষ্ঠান কাজ শেষ করে সাড়ে চার শ কোটি টাকা তুলে নিয়ে যাওয়ার পর আবিষ্কার হয় যে সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজে যন্ত্রপাতিই পৌঁছায়নি। এই প্রতিষ্ঠানটিসহ যত প্রতিষ্ঠান প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিল, প্রতিটিরই মালিক মোতাজজেরুল ওরফে মিঠু।

মোতাজজেরুল স্বাস্থ্য খাতের কেনাকাটা থেকে গত ১০ বছরে ঠিক কত টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন, সে ব্যাপারে নিশ্চিতভাবে কেউ বলতে পারছেন না। কারণ, এ ব্যাপারে কখনোই কোনো তদন্ত হয়নি। প্রতিবছর স্বাস্থ্য খাতে যন্ত্রপাতি কেনাকাটায় খরচ হয় সাত–আট শ কোটি টাকা। এর বাইরেও প্রকল্পভিত্তিক কেনাকাটা হয়। আ ফ ম রুহুল হক স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পাওয়ার পর ওই সময়ের ১৮টি মেডিকেল কলেজে যন্ত্রপাতি সরবরাহের কাজ পান মোতাজজেরুল ওরফে মিঠু।

তিনি এখন কোথায়? খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ২০১৬ সালে পানামা পেপারসে নাম ওঠা মোতাজজেরুল ওরফে মিঠু বিনিয়োগকারী কোটায় এখন যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করছেন। নিউইয়র্কের কাছে ব্রংসভিল নামের অভিজাত একটি এলাকায় বাড়ি কিনেছেন। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, এই বাড়ির দাম দুই মিলিয়ন ডলারের বেশি (১৬ কোটি টাকা)। আটলান্টায় ‘মোটেল সিক্স’ নামে একটি বিলাসবহুল মোটেলের তিনি অংশীদার। অস্ট্রেলিয়ায় ব্যবসার কাজে তাঁর ঘনঘন যাতায়াত আছে। চড়েন রোলস রয়েসে। ঢাকায় তাঁর মূল প্রতিষ্ঠান লেক্সিকোন মার্চেন্ডাইজসহ নামে-বেনামে থাকা বাকি প্রতিষ্ঠানগুলো আপাতত কিছুটা ঝিমিয়ে পড়েছে।

সিএমএসডির বর্তমান পরিচালক আবু হেনা মোরশেদ জামান প্রথম আলোকে বলেন, তিনি দায়িত্ব নেওয়ার পর ‌মিঠুচক্রের কাউকে সিএমএসডিতে দেখেননি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.